ফাইল ছবি

১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর থেকে আজকের ২০২০ সাল; বাংলা চলচ্চিত্রের বরপুত্র সালমান শাহকে হারানোর দুই যুগ।

বিনোদন

দৈনিক সত্যেরবাণী  : ভক্ত-সমালোচকরা তার স্মৃতিগুলো এখনও লালন করেন। প্রশংসায় ভাসেন তার কর্মের। আজও তিনি অম্লান নানা মাধ্যমে। ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর থেকে আজকের ২০২০ সাল; বাংলা চলচ্চিত্রের বরপুত্র সালমান শাহকে হারানোর দুই যুগ। বলা হয়ে থাকে তারকার মৃত্যুর পর ধীরে ধীরে ভক্তরা ভুলতে শুরু করেন। তবে সালমান শাহর ক্ষেত্রে তা একেবারে বিপ্রতীপ! তার জনপ্রিয়তা এখনও আকাশমুখী। ভক্ত-সমালোচকরা তার স্মৃতিগুলো এখনও লালন করেন। প্রশংসায় ভাসেন তার কর্মের। আজও তিনি অম্লান নানা মাধ্যমে।

কেউ এটাকে বলেন সালমান শাহ ভবন। সিলেটের দাড়িয়া পাড়া এলাকার এই ভবনটি মূলত নায়কের নানাবাড়ি। এখানেই তার জন্ম। সবুজঘেরা সাদা বাড়ি এটি। এটাই মূলত হয়ে উঠেছে সালমান শাহ ভক্তদের জন্য তীর্থ স্থান। দেশের বিভিন্ন স্থান এমনকি বিদেশ থেকেও ভক্তরা আসেন নায়কের স্মৃতিবিজড়িত এই বাসাটি দেখতে।

একধরনের অলিখিত সংগ্রহশালায় পরিণত হয়েছে এই বাড়ি। নায়কের প্রাপ্তির সব স্মারক-আর পুরস্কারে পূর্ণ এ বাসার শোকেস। দেয়ালজুড়ে সেঁটে রাখা হয়েছে বিভিন্ন সময়ের সালমান শাহর ছবি। ড্রেসিং টেবিল, ব্যবহৃত বইও আছে। বাড়িটিতে সালমান শাহ ব্যবহৃত খাট-চেয়ার ও কিছু তৈজসপত্রের দেখাও মেলে।

ক্ষণজন্মা নায়ক সালমান শাহর অসংখ্য গুণমুগ্ধ ভক্তদের একজন রাশেদুল ইসলাম। তিনিই গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার উলুখোলার বর্তুল (উত্তরপাড়া) গ্রামের গড়ে তুলেছেন ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ রিসোর্ট। মূলত সালমানের সুপারহিট ছবি ‘স্বপ্নের ঠিকানা’র নামে একটি নামকরণ করা। রিসোর্টে সালমান শাহ’র একটি নান্দনিক ভাস্কর্য আছে। চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি এটি উদ্বোধন করা হয়। পাঁচ বিঘা জমির ওপর নির্মিত এই রিসোর্টে দুটি সাধারণ ও একটি ভিআইপি কটেজ বানানো হয়েছে। আরও বিভিন্ন কটেজ নির্মাণের কাজ চলছে। তার সবটাতেই আছে সালমান শাহ’র বিভিন্ন স্মৃতির ছোঁয়া।

 

সালমান শাহ হাউজএকধরনের অলিখিত সংগ্রহশালায় পরিণত হয়েছে এই বাড়ি। নায়কের প্রাপ্তির সব স্মারক-আর পুরস্কারে পূর্ণ এ বাসার শোকেস। দেয়ালজুড়ে সেঁটে রাখা হয়েছে বিভিন্ন সময়ের সালমান শাহর ছবি। ড্রেসিং টেবিল, ব্যবহৃত বইও আছে। বাড়িটিতে সালমান শাহ ব্যবহৃত খাট-চেয়ার ও কিছু তৈজসপত্রের দেখাও মেলে।

 

স্বপ্নের ঠিকানা:

ক্ষণজন্মা নায়ক সালমান শাহর অসংখ্য গুণমুগ্ধ ভক্তদের একজন রাশেদুল ইসলাম। তিনিই গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলার উলুখোলার বর্তুল (উত্তরপাড়া) গ্রামের গড়ে তুলেছেন ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ রিসোর্ট। মূলত সালমানের সুপারহিট ছবি ‘স্বপ্নের ঠিকানা’র নামে একটি নামকরণ করা। রিসোর্টে সালমান শাহ’র একটি নান্দনিক ভাস্কর্য আছে। চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারি এটি উদ্বোধন করা হয়। পাঁচ বিঘা জমির ওপর নির্মিত এই রিসোর্টে দুটি সাধারণ ও একটি ভিআইপি কটেজ বানানো হয়েছে। আরও বিভিন্ন কটেজ নির্মাণের কাজ চলছে। তার সবটাতেই আছে সালমান শাহ’র বিভিন্ন স্মৃতির ছোঁয়া।

সালমান শাহ’র নামে ফ্লোর ও মিউজিয়াম দাবি: এদিকে প্রতি বছরের মতো এবারও টিম সালমান শাহ-এর উদ্যোগে আয়োজন করা হচ্ছে কোরআন খতম, মিলাদ ও দোয়ার আয়োজন। টিমের প্রধান মাসুদ রানা নকীব জানান, সালমান শাহের ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ভক্তদের উদ্যোগে এই আয়োজন করা হয়েছে রাজধানীর হাইকোর্ট মাজার মসজিদে। এটি অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ (৬ সেপ্টেম্বর) আসরের নামাজের পর।

একই সঙ্গে টিম সালমান শাহ-এর পক্ষ থেকে এবারের মৃত্যুবার্ষিকীতে দাবি জানানো হচ্ছে, সালমান শাহ হত্যা মামলা পুনঃতদন্তভার র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)-এর কাছে স্থানান্তরের জন্য। যা এখন রয়েছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কাছে। মৃত্যুর দুই যুগ পরেও দেশের টিভি চ্যানেলে প্রচারিত সিনেমার সূচির বড় অংশ জুড়ে আছেন সালমান শাহ। আজও দেশের বেশিরভাগ বিনোদনভিত্তিক টিভি চ্যানেল সম্প্রচার করবে সালমান শাহ’র ছবি। শুধু তাই নয়, ঢুলি কমিউনিকেশনস-এর আয়োজনে প্রথমবার (২০১৪) বলাকা ও পরে (২০১৯) মধুমিতা প্রেক্ষাগৃহে অনুষ্ঠিত হয়েছে জমকালো সালমান শাহ উৎসব। যার মাধ্যমে আবারও প্রেক্ষাগৃহে প্রদর্শিত হয়েছে এই নায়কের সিনেমা। দুটি উৎসবেই সারা দেশ থেকে অংশ নিয়েছেন সালমান ভক্তরা। ছিলো উপচেপড়া ভিড়।

কোনও প্রয়াত নায়ককে ঘিরে বাংলাদেশে এমন উৎসব আর হতে দেখা যায়নি।

ঢুলি কমিউনিকেশনস জানায়, ২০২১ সালে সালমান শাহ-এর ৫০তম জন্মোৎসব করা হবে আরও বড় পরিসরে।

SHARE

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *